রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০১:৪৭ অপরাহ্ন

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৭৭২,১২৭
সুস্থ
৭০৬,৮৩৩
মৃত্যু
১১,৮৭৮
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট

করোনা: চট্টগ্রামে কোরবানির বাজার নিয়ে শঙ্কায় ক্রেতা-বিক্রেতারা: তেমন জমে উঠেনি পশুর হাট

বশির আল মামুন, চট্টগ্রাম ব্যুরো
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ জুলাই, ২০২০

বশির আল মামুন, চট্টগ্রাম:
বন্দরনগরী চট্টগ্রামে কোরবানির পশুহাটগুলোতে বেশ গরু-ছাগল জমায়েত হলেও এখন পর্যন্ত তেমন বিক্রি নেই। কোরবান আর মাত্র তিন দিন বাকি থাকলেও বাজারে ক্রেতার উপস্থিতি কম। যারা বাজারে আসছে তারাও পছন্দের গরু-ছাগলের দাম জিজ্ঞাসার মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে। আবার বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে বেশি দাম হাঁকানোর অবিযোগও রয়েছে।
বেপরিরা জানিয়েছে বাজার পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে তা এখনো বুঝে উঠতে পারছেনা তারা। বাজারে নিয়ে আসা পশু বিক্রি করতে পারবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন অধিকাংশ বেপারী। ইজারাদাররাও নিজেদের ইজারামূল্য তুলতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দিহান।
চট্টগ্রাম নগরীতে এবার মোট সাতটি পশুর হাট বসেছে। এর মধ্যে সাগরিকা ও বিবিরহাট বাজার দু’টি স্থায়ী। এ ছাড়া পোস্তারপাড় ছাগলের হাটটিও স্থায়ী। এর বাইরে চারটি অস্থায়ী পশুর হাট নিলামের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যক্তিকে ইজারা দিয়েছে সিটি করপোরেশন। সেগুলো হলো কর্ণফুলী হাট, সল্টগোলা রেল ক্রসিং হাট, পতেঙ্গা বাটার ফ্লাই পার্ক সংলগ্ন গরুর বাজার ও কমল মহাজন হাট।
গত কয়েকদিন ধরে ব্যবসায়ীরা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসব হাটে গরু নিয়ে আসছেন। তবে তবে ইজারাদাররা বলছেন, উত্তরবঙ্গের যেসব স্থান থেকে চট্টগ্রামে গরু আসত এ বছর করোনা পরিস্থিতির কারণে এক তৃতীয়াংশও আসেনি। গত সপ্তাহের মাঝামাঝি সময় থেকে নগরীর স্থায়ী-অস্থায়ী পশুরহাট গুলোতে কুষ্টিয়া, মাগুরা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ফরিদপুর, নাটোর, রাজশাহী ও কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে গরু আসতে শুরু করে। তবে এবার চট্টগ্রামের হাটে রাজশাহী ও মাগুরা থেকে নগণ্য সংখ্যক গরু এসেছে বলেও ইজারাদারদের দাবি। অবশ্য জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ বলছে চট্টগ্রামের চাহিদার ৯৫ শতাংশই স্থানীয়ভাবে পূরণ হবে। কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতা তেমন উপস্থিতি নেই। অল্পকজ’ন ক্রেতা হাট ঘুরে গরু দেখছে, দরদাম পরখ করছে। এমনকি গত শুক্রবার ও গতকাল শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও তেমন ক্রেতা সমাগম হয়নি চট্টগ্রামের পশুরহাটগুলোতে।
ক্রেতা-বিক্রেতাদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, কোরবানি ঈদের আর মাত্র দুই দিন বাকি থাকলেও পশুর হাটগুলোতে এখনও জমে ওঠেনি পশু বিক্রি। বিক্রির উদ্দেশ্যে দেশের নানা প্রান্ত থেকে গরু নিয়ে হাজির হচ্ছে বেপারিরা। তবে এবারের চিত্র একেবারেই ভিন্ন। অন্যান্য বছর শত শত পশুবাহী ট্রাক পশুর হাটগুলোর সামনে অপেক্ষমাণ দেখা গেলেও এবার সে চিত্র একেবারেই নেই বললে চলে। শহরের সড়ক গুলোতে খড়ের স্তুপ ও ভুষির বস্তা চোখে পড়ছেনা।
চট্টগ্রামের কোরবানিদাতাদের সিংহভাগই এককভাবে পশু কোরবানি দিতেন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমে যাওয়ায় এবং বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশীদের শ্রমবাজার সঙ্কুচিত হয়ে পড়াতে এবার অনেকেই এককভাবে একটি পশু কোরবানি না দিয়ে কয়েকজন মিলে একটি পশু কোরবানি দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। আবার অনেকেই এবার কোরবানি দেয়ার সামর্থ্য হারিয়েছে। ফলে সব মিলিয়ে এবার কোরবানির পশুর হাটে ক্রেতার উপস্থিতি কম।
মাগুরা থেকে ১৪টি গরু নিয়ে বিবির হাটে এসেছেন বেপারি গোলাম মোস্তফা। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, বাজারে এসেই ক্রেতার উপস্থিতি দেখে হতাশ। কোনো রকমে খরচ ওঠাতে পারলেই গরু বিক্রি করে দেবেন বলে তিনি জানান।
নগরীর হালিশহর থেকে সাগরিকা বাজারে কোরবানির গরু পছন্দ করতে এসেছেন মাঈনুল ইসলাম। তিনি অভিযোগ করছিলেন একদিকে বাজারে পশুর দাম বেশি হাঁকানো হচ্ছে, অন্যদিকে বাজারে পর্যাপ্ত পশু আসেনি বলেও তার দাবি।
পশুর হাট পর্যবেক্ষণে আসা দেয়ানবাজারের বাসিন্দা কলিম উল্লাহ জানিয়েছেন বেপারিরা এখন পর্যন্ত বাড়তি দামের জন্য গোঁ ধরে আছেন। তবে শেষ মুহূর্তে তারা স্বাভাবিক দরে নেমে আসতে বাধ্য হবেন এমনটিই দাবি এই ক্রেতার।
সূত্র জানায়, গত বছর কোরবানির ঈদে চট্টগ্রাম জেলার ৮০ শতাংশ পশুর জোগান দিয়েছেন এখানকার খামারিরা। আর এবার প্রায় ৯৫ শতাংশ স্থানীয়ভাবে জোগান দেয়া সম্ভব হবে জানিয়ে সূত্র বলেছে, এবার কোরবানিতে চট্টগ্রম জেলায় পশুর চাহিদা রয়েছে সোয়া সাত লাখের মতো। এর মধ্যে স্থানীয়ভাবেই পৌনে সাত লাখ পশুর জোগান দেয়া সম্ভব হবে। চট্টগ্রামের খামারগুলোতে বর্তমানে প্রায় পৌনে ৫ লাখ গরু, ৫৭ হাজার ১৩১টি মহিষ, প্রায় পৌনে ২ লাখ ছাগল ও ভেড়ার মজুদ রয়েছে।
সাগরিকা গরুর বাজারের ইজারাদার সাইফুল হুদা জাহাঙ্গীর বলেন, শুরুতে করোনার কারণে অনেক বেপারি আসতে রাজি ছিল না। গত কয়েক দিন ধরে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলার গরু আসতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে ৩০-৪০ শতাংশ গরু এসেছে এবং দুই দিনের মধ্যে আরো পশু আসবে। বিক্রিও মোটামুটি হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, শহরের লোকজনের গরু রাখার জায়গা কম। ফলে অনেকেই শেষ দিকে পশু কেনেন।
বিবিরহাট স্থায়ী পশুর হাটের ইজারাদার আরিফুল ইসলাম গতকাল সোমবার দুপুরে বলেন, সরকারের নির্ধারিত স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করেই যাতে ক্রেতারা পশু ক্রয় করতে পারেন সে জন্য হাটে স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে, বেপারিদের প্রত্যেককে মাস্ক দেয়া হয়েছে ইজারাদারের পক্ষ হতে, পুরো বাজারে জীবাণুু নাশক ছিটানো হচ্ছে কিছুক্ষণ পর পর। বেপারি ও রাখালদের জ্বর মাপা হচ্ছে এবং এম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে সার্বক্ষণিকভাবে। তিনি জানান, উত্তরবঙ্গের পশু এবার গতবারের চ্ইাতে ৭০ শতাংশ কম এসেছে। বেচা বিক্রিও নেই জানিয়ে তিনি বলেন, গত শুক্রবার অন্যান্য বছর হলে ৪০ লাখ টাকার উপরে বিক্রি হতো। কিন্তু এবার বিক্রি হয়েছে মাত্র ৪৪ হাজার টাকা।
করোনা পরিস্থিতির কারণে আসন্ন কোরবানির ঈদও এবার চট্টগ্রামে আমেজহীন হওয়ার আশঙ্কা। এর আগে রমজানের ঈদে দেশে তথা চট্টগ্রামে কোন ধরনের আমেজ ছিল না দৃশ্যমান। করোনার প্রার্দুভাব দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় গতবারের তুলনায় এবার কোরবানিও হতে পারে সীমিত পরিসরে।
তাছাড়া কোরবানি করা-না করা নিয়ে ক্রেতাদের এবং আগের মতো বাজারে তেমন গরু, মহিষ, ছাগল বিক্রয় করছেন কিনা সেই নানাবিধ শঙ্কায় ক্রেতা-বিক্রেতারা। তবে নানা সংকটের মধ্যেও গত বছরের মতোই চট্টগ্রামে পশু জবাই হতে পারে বলে জানান জেলা প্রাণিসম্পদের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।
এদিকে চট্টগ্রামের প্রাণিসম্পদ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী কোরবানির ঈদ সামনে রেখে চট্টগ্রামে আট হাজারের বেশি খামারি গবাদিপশু পালন করছেন। আর এসব খামারে চট্টগ্রামে প্রায় পৌনে পাঁচ লাখ দেশী জাতের গরু রয়েছে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের।
চট্টগ্রাম জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রেয়াজুল হক জসিম বলেন, গত বছর ৭ লাখ ২০ হাজার ৭৮৯টি পশু জবাই করা হয়েছে কোরবানিতে। এবারও সমসংখ্যক পশু জবাই করা হবে। এবার ৬ লাখের বেশি পশু স্থানীয়ভাবে লালন-পালন করা হয়েছে। নানা সংকটের মধ্যে পশুর বাজার ঠিক থাকবে। এতে সবমিলে কোরবানিতে পশুর সংকট হবে না বলে জানান তিনি।
জানা গেছে, গত এক বছর ধরে কোরবানির প্রস্তুতি নিচ্ছেন ছোট-বড় খামারি থেকে শুরু করে ব্যক্তি উদ্যোক্তরা। লালন-পালন করেছেন শত শত কোরবানির পশু। গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া ও কোরবানিযোগ্য অন্যান্য প্রাণী। প্রতিবছর কোরবানিতে বড় অবদান রেখে আসছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একই রকম আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021 matamuhuri.com
কারিগরি সহযোগিতায়: Infobytesbd.com
Jibon