রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেশের আলোচিত মেজর সিনহা হত্যার আজ এক বছর ছিনতাইকারী নারী টিকটকার গ্রেফতার এশিয়ান হাসপাতালের এমডির বিরুদ্ধে মারধর ও লুটের অভিযোগ চট্টগ্রামের দুদক কর্মকর্তার ‘বদলির আদেশ’ স্থগিত করলেন হাইকোর্ট বর্ষা এলেই চট্টগ্রামের পাহাড়ে শুরু হয় মানুষ সরানোর তোড়জোড় ঈদগাঁওতে পানিবন্দি অসহায়দের মাঝে চাল-ডাল বিতরণ ঈদগাঁওতে নিহত ৩ যুবকের জানাযায় শোকার্ত মানুষের ঢল চকরিয়ায় তীব্র খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট : বন্যায় তিন লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফের নিদের্শনায় পোকখালীতে খাবার বিতরণ স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বন্যায় পানিবন্দি অসহায় মানুষের পাশে জেলা পরিষদ সদস্য কমরউদ্দিন

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,২৪৯,৪৮৪
সুস্থ
১,০৭৮,২১২
মৃত্যু
২০,৬৮৫
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
৯,৩৬৯
সুস্থ
১৪,০১৭
মৃত্যু
২১৮
স্পন্সর: একতা হোস্ট

করোনা আতঙ্কের মধ্যে মঙ্গলবার পবিত্র ঈদুল আজহা

মাতামুহুরী ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২০ জুলাই, ২০২১

মহামারি করোনার মধ্যেই বছর ঘুরে আবার এলো পবিত্র ঈদুল আজহা। সারা পৃথিবীতে মহামারির কারণে ৪১ লাখ মৃত্যু, ১৯ কোটির বেশি মানুষ আক্রান্ত হওয়ার প্রেক্ষাপটে দেশে দেশে অর্থনৈতিক অবস্থাও টালমাটাল। এমন এক কঠিন সময়ে মুসলমানদের দোড়গোড়ায় হাজির হলো পবিত্র ঈদুল আজহা। আগামীকাল বুধবার, ২১ জুলাই সারাদেশে যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে উদযাপিত হবে পবিত্র এই দিনটি। ত্যাগের মহিমায় চিরভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা হিজরি বর্ষপঞ্জি অনুসারে জিলহজ মাসের ১০ তারিখে পালিত হয়। এ কারণে এই দিনক্ষণ আগেই ঠিক হয়ে আছে। ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আজহায় ঠিক আগের দিনে চাঁদ দেখা নিয়ে কোনো অনিশ্চয়তা নেই।

আমাদের দেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঊর্ধ্বগতির কারণে আতঙ্ক-উদ্বেগের মধ্যেই ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। কুরবানির পশু কেনা ও ঈদের নামাজসহ অন্যান্য প্রস্তুতির জন্য সরকার চলমান করোনা বিধিনিষেধ আট দিনের জন্য শিথিল করে। তবে ঘরমুখী লাখ লাখ মানুষের ঘরে চলাচল, গণপরিবহন ও পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা ও দোকান-শপিংমল ভিড় করে কেনাকাটার কারণে সংক্রমণ আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে, করোনা চলাকালে অনেকে স্বজন হারিয়েছেন বা অসুস্থতায় ভুগছেন, অর্থনৈতিক মন্দা ও লকডাউনের কারণে অসংখ্য মানুষের কাজ হারানো বা আয় কমে যাওয়ার কারণে তাদের ঘরে ঈদের আনন্দ অনুপস্থিত। এই প্রেক্ষাপটে এবারের ঈদুল আজহা শুধু ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতায় সীমাবদ্ধ থাকবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

ঈদুল আজহা আমাদের দেশে ‘কুরবানির ঈদ’ নামেই বেশি পরিচিত। কেউ কেউ এই ঈদকে বকরি ঈদ হিসেবেও আখ্যায়িত করে থাকেন। সে অনুসারে পশু কেনা থেকে গ্রামের বাড়িতে যাওয়াসহ ঈদের সব পস্তুতি সম্পন্ন করে থাকেন সবাই। কুরবানির পশু কেনার পর্বও শেষ করেছেন অনেকেই। পশুর যত্ম-পরিচর্যাতেই ঈদের মূল প্রস্তুতি ও আনন্দ। ইতোমধ্যে সারাদেশে জমে উঠেছে কুরবানির পশুর হাট। রাজধানী ঢাকায় ক্যাটল ট্রেন, ট্রলার ও ট্রাকে করে কুরবানির গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া, উট আনা হচ্ছে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে। রাজধানীর কুরবানিদাতারা পছন্দের পশুটি কেনার জন্য গাবতলীর প্রধান হাটসহ সুবিধামতো বিভিন্ন হাটে যাচ্ছেন।

রাজধানীতে অনেকেই কুরবানির পশু কিনে নিজ নিজ বাসভবনের কার পার্কিং ও সামনের ফুটপাতে রেখেছেন। পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে বিকোচ্ছে তাজা কাঁঠালপাতা, খড়-বিচালি-ভুসি ইত্যাদি। গলায় রঙিন কাগজ ও জরির মালা জড়ানো হৃষ্টপুষ্ট ষাঁড় দড়ি ধরে ঘরমুখো চলছেন কুরবানিদাতারা। গবাদিপশুর ডাকও বেশ শোনা যাচ্ছে এখানে ওখানে।

হজরত ইব্রাহিমের (আ.) সুন্নত অনুসরণ করেই সারা বিশ্বের মুসলমানরা ১০ জিলহজ কুরবানি দিয়ে থাকেন। হজরত ইব্রাহিম (আ.) স্বপ্নে তার সবচেয়ে প্রিয় বস্তু কুরবানির জন্য মহান আল্লাহতাআলার নির্দেশ পেয়েছিলেন। পরপর দুবার তিনি পশু কুরবানি করেন। তৃতীয়বার একই নির্দেশ পেয়ে তিনি অনুধাবন করেন, পুত্র ইসমাইলের চেয়ে প্রিয় তার কেউ নেই। আল্লাহপাক তাকেই কুরবানি করতে নির্দেশ দিচ্ছেন। হজরত ইব্রাহিম (আ.) তার প্রাণপ্রিয় পুত্র হজরত ইসমাইলকে (আ.) আল্লাহর নির্দেশ জানালেন। শিশু ইসমাইল (আ.) নির্ভয় চিত্তে সম্মতি দিয়ে পিতাকে আল্লাহতাআলার নির্দেশ পালন করতে বলেন। কুরবানি করতে উদ্যত হজরত ইব্রাহিম (আ.) পুত্রস্নেহে যেন হৃদয় দুর্বল না হয়ে পড়েন, সে জন্য তিনি চোখ বেঁধে পুত্রের গলায় ছুরি চালিয়েছিলেন। আল্লাহতাআলার অপার কুদরতে এ সময় হজরত ইসমাইলের (আ.) পরিবর্তে দুম্বা কুরবানি হয়ে যায়। কাল ঈদের নামাজের জামাতের আগে খুতবায় হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও হজরত ইসমাইলের (আ.) কুরবানির এই কাহিনি তুলে ধরবেন ইমামরা। বিনম্র চিত্তে তাদের স্মরণ করবেন সারা বিশ্বের মুসলমানরা।

কুরবানি দেয়া আর্থিকভাবে সামর্থ্যবান প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর জন্য ওয়াজিব। ১০ জিলহজ পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হলেও পরের দুদিন অর্থাৎ ১১ ও ১২ জিলহজেও কুরবানি করার বিধান রয়েছে। সাধারণত পশুই কুরবানি করার বিধান রয়েছে। তবে আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনা করে সমস্ত লোভ লালসা, হিংসা-বিদ্বেষ, ক্রোধ, স্বার্থপরতা তথা ভেতরের পশুত্বকে ত্যাগের মধ্য দিয়ে আত্মশুদ্ধি লাভের ভেতরেই রয়েছে কুরবানির প্রকৃত তাৎপর্য। ঈদের জামাত আদায় করে সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়বেন কুরবানির জন্য। ঈদের জামাতে ব্যক্তি, সমাজ, দেশ, মুসলিম উম্মাহ এবং সারা বিশ্বের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করা করা হবে। প্রার্থনা করা হবে করোনা থেকে মুক্তির জন্যও।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একই রকম আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021 matamuhuri.com
কারিগরি সহযোগিতায়: Infobytesbd.com
Jibon