শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মোঃ শফিক মিয়া ও জাহেদুল ইসলাম লিটু আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার আবদুল হান্নানের ত্যাগের কথা আজীবন স্বরণ করবে বদরখালীবাসী বদরখালীতে স্বরণ সভায়–আমিনুল ইসলাম নৌকার বিরোধীতা করবেন কপালে শনির দশা আছে: হারাতে হবে পদ চকরিয়ায় কুয়ার পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু চট্টগ্রামে পথহারা’ কিশোরীকে দলবেঁধে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৩ চিড়িয়াখানায় বাঘিনী শুভ্রার ঘরে প্রথম সন্তান, বেড়ে উঠছে ‘মানুষের মমতায়’ বদরখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হান্নানের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে এমপি কমলের সাক্ষাত খাগড়াছড়িতে নৈসর্গিক শিশুপার্ক নির্মাণ করা হবে : ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করায় দল থেকে ১১ বিদ্রোহী প্রার্থীকে সাময়িক বহিস্কার করছে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ।

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,৫৪০,১১০
সুস্থ
১,৪৯৭,০০৯
মৃত্যু
২৭,১৪৭
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট

দেশের আলোচিত মেজর সিনহা হত্যার আজ এক বছর

বশির আল মামুন, চট্টগ্রাম ব্যুরো
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৩১ জুলাই, ২০২১

কক্সবাজেরর টেকনাফের বাহারছড়ায় গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহার নৃশংস হত্যা কান্ডের আজ এক বছর। এ হত্যাকান্ডের অন্যতম আসামী ওসি প্রদীপ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী না দিলেও সে যে হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত তা চার্জশিটেই প্রমাণিত হয়েছে। এখন আদালতে সাক্ষীরাই এই ঘটনা প্রমাণ করবেন। কিন্তু এত বিপুল সংখ্যক সাক্ষীদের হাজির করে সাক্ষ্য নেয়াটা সবচেয়ে কঠিন এবং দুরূহ কাজ। তা ছাড়া সাক্ষ্য গ্রহণ প্রক্রিয়া যদি আরো পিছিয়ে যায় তাহলে সব সাক্ষীকে পাওয়া যাবে কিনা এটিই আশঙ্কার বিষয়। তবুও আমাদের প্রত্যাশা সব সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ দ্রুত সময়ের মধ্যে শেষ হবে এবং এই নৃশংস হত্যাকান্ডের মতো বিচার পাব।’
অবসর প্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান হত্যার আজ এক বছর পূর্তিতে কাছে এমন প্রত্যাশা ও আশঙ্কার কথা জানালেন মামলার বাদি সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। গত ২৭ জুন এই চাঞ্চল্যকর মামলার চার্জ গঠন হয়েছে। মামলার বিচারক কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আসামিদের উপস্থিতিতে ওই দিন মামলাটির চার্জ গঠন শেষে ২৬, ২৭ ও ২৮ জুলাই বাদিসহ ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করেছিলেন। কিন্তু করোনার কারণে লকডাউনে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সাক্ষ্য গ্রহণ সম্ভব হয়নি।
শারমিন শাহরিয়া আরো বলেন, এক বছর তো হয়ে গেলো। সবকিছু ভালোভাবে এগোচ্ছিল। তিন থেকে সাড়ে তিন মাসের মধ্যে তদন্ত সংস্থা চার্জশিট দিলো। কিন্তু চলমান কোভিড পরিস্থিতির কারণে মামলা গতি আগের মতো নেই এটা বলা যায়। তবুও চার্জশিট প্রদান এবং আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জফ্রেম হওয়াতে আমরা আশাবাদী। আমাদের প্রত্যাশা লকডাউন যখনই শেষ হবে তখন দ্রুততার সাথে যেন সাক্ষ্য গ্রহণ করে বিচারকাজ শেষ করা হয়। আমরা আশাকরি এমনটাই হবে, তবে কোভিড আমাদের মামলার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ওসি প্রদীপ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী না দিলেও সে অপরাধের দায় থেকে নিষ্কৃতি পাবে বলে আমার মনে হয় না। প্রদীপ সিনহা হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত। কারণ চার্জশিটে তার অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ৮০-৮৪ জন সাক্ষীকে হাজির করে সাক্ষ্য নেয়া একটি কঠিন কাজ। কারণ দীর্ঘ সময় ধরে মামলা চলতে থাকলে বিশেষ করে যদি আরো ছয় মাস বা তার চেয়েও বিলম্ব হলে অনেক সাক্ষীকে পাওয়া মুশকিল হয়ে যাবে। এত দীর্ঘ সময় ধরে সাক্ষীদের রাখাটাও একটা কঠিন কাজ এবং অনেক সময় সাক্ষীদের খুঁজে পাওয়াটাও কঠিন হয়ে যায়। সব সাক্ষীকে পাওয়া যাবে কিনা নাকি একেকজন আবার একেক জায়গায় চলে যাবে। তাদের আনা যাবে কিনা। এটাই এখন আমাদের আশঙ্কা।
সাক্ষীদের সাক্ষ্য প্রদান সম্পন্ন হলে আমরা ভালো একটা রায় পাব বলে বিশ্বাস করছি। তাই সাক্ষ্য গ্রহণ প্রক্রিয়াটি দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করার জন্য আমি আবেদন করছি। তিনি আরো বলেন, ‘দুই বোন ও একমাত্র ভাই সিনহা এবং মা বাবা। আমরা সবাই খুব ক্লোজ ছিলাম। আমাদের বাবা-মায়ের সাথে অন্য রকম সম্পর্ক ছিল। তারা আমাদের অভিভাবক ও বন্ধু ছিলেন। ২০০৭ সালে বাবাকে হারিয়ে আমরা বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ি। এ সময় সিনহাই আমাদের পিতার স্থান দখল করে আমাদের সাহস ও সান্ত¡না জুগিয়েছে। এখন চোখের পানিতে এক বিশাল শূন্যতার মধ্যে কেটে যাচ্ছে সময়।
ভাইকে হারানোর শোক আমরা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারিনি। বিশেষ করে আমার মা ছেলে হারিয়ে এখনো প্রায় বাকরুদ্ধ। সিনহা সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়ার পর মাকে প্রায়ই বলত, ‘আম্মু আজকে থেকে কিন্তু আমি শুধু তোমার সন্তান না, দেশ মাতৃকার সন্তানও। আমি যেমন তোমার সন্তান আমি দেশেরও সন্তান। তুমি সবসময় এটি মাথায় রাখবা যদি কখনো আমার কিছু হয় তুমি কখনো বিচলিত হবা না মা।’ এ কথা বলে সে আম্মুকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করেছিল। ছেলে যখন একজন মাকে এভাবে তৈরি করে তখন ছেলের কিছু হলে শোক সইবার ক্ষমতা তখন আল্লাহ দিয়ে দেন। সে প্রকৃতিকে ভীষণভাবে ভালোবাসত। চলত বিদ্যুতের গতিতে। যত দামি খাবার হোক না কেন সে পরিমাণের বাইরে একদম খেত না। ২৬ জুলাই ছিল তার জন্মদিন। প্রতি বছর এই দিন আমরা উদযাপন করতাম। গত বছর তার জন্মদিনে আমরা তার জন্য কেক পাঠিয়েছি। এবার কেটেছে বিশাল শূন্যতার মাঝে। ধুমধাম করে ঘরে ঢুকে আবার বিদ্যুৎ গতিতে চলে যেত, প্রতিটি মুহূর্তকে সে কাজে লাগাত। জীবন তো আর ওভাবে চলে না আগে যেভাবে চলত। আহাজারি আমরা সৃষ্টিকর্তার কাছে করছি। সৃষ্টিকর্তার কাছে কান্না তো দেখাতে হয়। আলটিমেটলি তার হাতেই তো চূড়ান্ত বিচার। আমার আরøাহর কাছে ন্যায়বিচার তো পাবই।
কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম জানান, চলমান লকডাউনের কারণে নির্ধারিত তারিখে মামলাটির সাক্ষ্য গ্রহণ সম্ভব হয়নি। কোভিড পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে মামলার কার্যক্রম আবার আগের মতোই চলবে। উরেøখ্য, ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর এপিবিএন চেকপোস্টে বাহারছড়া পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান। হত্যাকান্ডের পর ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদি হয়ে পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত ও টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপসহ ৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পায় র্যাব-১৫।
হত্যাকান্ডের পর চার মাসের বেশি সময় তদন্ত শেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে এবং ৮৩ জনকে সাক্ষী করে আলোচিত মামলাটির অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা রথ্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম। মামলায় অভিযুক্ত ও কারাগারে আটক থাকা ১৫ আসামি হলো- বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, দেহরক্ষী রুবেল শর্মা, টেকনাফ থানার এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাগর দেব, এপিবিএনের এসআই মো: শাহজাহান, কনস্টেবল মো: রাজীব ও মো: আবদল্লাহ পুলিশের মামলার সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের মারিশবুনিয়া গ্রামের নুরুল আমিন, মো: নিজামুদ্দিন ও আয়াজ উদ্দিন।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একই রকম আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021 matamuhuri.com
কারিগরি সহযোগিতায়: Infobytesbd.com
Jibon