রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেশের আলোচিত মেজর সিনহা হত্যার আজ এক বছর ছিনতাইকারী নারী টিকটকার গ্রেফতার এশিয়ান হাসপাতালের এমডির বিরুদ্ধে মারধর ও লুটের অভিযোগ চট্টগ্রামের দুদক কর্মকর্তার ‘বদলির আদেশ’ স্থগিত করলেন হাইকোর্ট বর্ষা এলেই চট্টগ্রামের পাহাড়ে শুরু হয় মানুষ সরানোর তোড়জোড় ঈদগাঁওতে পানিবন্দি অসহায়দের মাঝে চাল-ডাল বিতরণ ঈদগাঁওতে নিহত ৩ যুবকের জানাযায় শোকার্ত মানুষের ঢল চকরিয়ায় তীব্র খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট : বন্যায় তিন লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফের নিদের্শনায় পোকখালীতে খাবার বিতরণ স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বন্যায় পানিবন্দি অসহায় মানুষের পাশে জেলা পরিষদ সদস্য কমরউদ্দিন

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,২৪৯,৪৮৪
সুস্থ
১,০৭৮,২১২
মৃত্যু
২০,৬৮৫
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
৯,৩৬৯
সুস্থ
১৪,০১৭
মৃত্যু
২১৮
স্পন্সর: একতা হোস্ট

করোনায় পেশা পরিবর্তন, জীবিকার লড়াইয়ে শিক্ষক এখন দোকানদার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১

তানজিনুল ইসলাম। পেশায় একজন শিক্ষক। তিনি চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠের প্রাথমিক শাখায় শিক্ষকতা করেন। অর্থনীতি বিষয়ে মাস্টার্স পাশ করে তিনি শিক্ষকতা পেশা বেছে নিয়েছেন। শিক্ষকতায় মোটামুটি ভালই চলছিলো। কিন্তু বাঁধ সেজেছেন বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস। লকডাউনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষক তানজিনুল ইসলাম এখন ‘টি-স্টোর’ খুলে কোন রকম পরিবারের হাল ধরেছেন।

গত দেড় বছর ধরে করোনা ভাইরাসে সারাবিশ্বের মতো দেশেও টানা লকডাউনে সব পেশার মানুষকে নতুন করে ভাবিয়ে তুলেছেন। মন্দা কাটিয়ে উঠতে পারছে না দেশের অর্থনীতি। এরইমধ্যে করোনাকালে সবচেয়ে ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন শিক্ষকতা পেশা। এই মহৎ পেশার প্রতি শিক্ষিত যুব সমাজের চাহিদা থাকলেও করোনায় এ পেশার পরিবর্তন ঘটছে প্রতিদিন। বিশেষ করে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এই রকম চিত্র দেখা গেছে চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের। চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ প্রাথমিক শাখার বেশ ক’জন শিক্ষক নানা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। তানজিনুল ইসলাম দেড় বছর পূর্বে শিক্ষকতা করলেও তিনি এখন চা ও নাস্তা উপকরণের দোকান খুলে ব্যবসা করছেন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় যেমন কর্মহারা শিক্ষকরা তেমনি দিশেহারা যুবকেরা। দেখা যাচ্ছে না কোন আশার আলো। আর্থিক সংকট ও পেটের ক্ষুধা তাড়া করছে প্রতিনিয়ত। এহেন পরিস্থিতিতে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক ও আর্থিক স্বচ্ছল বন্ধুদের সহযোগিতা নিয়ে গত মাসে ওয়াপদা রোড এলাকায় চারু ছায়া কমপ্লেক্সে ব্যবসা শুরু করেন। এতে বিক্রি করছেন সকল ধরনের চা ও নাস্তা উপকরণ এবং দুগ্ধজাত শিশুখাদ্য।
জানতে চাইলে শিক্ষক তানজিনুল ইসলাম বলেন, করোনাকালীন সময়ে অধিকাংশ মানুষ কর্ম হারিয়েছে। চলছে সরকার ঘোষিত একের পর এক লকডাউন। এমন পরিস্থিতিতে বাড়ছে বেকারত্ব। কিন্তু পেট তো পরিস্থিতি বুঝে না। আয়ের পথ বন্ধ থাকায় নিজের পরিবারকে বাঁচাতে ক্ষুদ্র প্রচেষ্ঠা।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একই রকম আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021 matamuhuri.com
কারিগরি সহযোগিতায়: Infobytesbd.com
Jibon